২৭ জুন, ২০১৯ | ১৩ আষাঢ়, ১৪২৬ | ২৩ শাওয়াল, ১৪৪০


বিবিএন শিরোনাম
  ●  ঈদগাহ উপজেলা হতে যাচ্ছেঃ প্রজ্ঞাপন জারী   ●  রোহিঙ্গারা দেশের নিরাপত্তার জন্য হুমকি হতে পারে: প্রধানমন্ত্রী   ●  ঈদগাঁওতে মাদক ব্যবসায় পুরুষের চেয়ে নারীরা এগিয়ে   ●  অবশেষে বরখাস্ত হলেন ডিআইজি মিজান   ●  নাইক্ষ্যংছড়ি ১১ বিজিবির বৃক্ষরোপনকর্মসূচীর শুভ  উদ্বোধন   ●  অধিকাংশ মানুষের সমস্যা চিহ্নিত করে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে- উখিয়ায় জেলা প্রশাসক   ●  রামুতে বন্য হাতির আক্রমণে বৃদ্ধা নিহত   ●  অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকায় ইসলামপুরের শাহিনকে আদালতে প্রেরণঃবাচ্চুর জামিন না মঞ্জুর !   ●  চকরিয়ায় সাজাপ্রাপ্ত হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার   ●  টেকনাফে ৪টি অস্ত্র ও ১০ রাউন্ড গুলিসহ অস্ত্রপাচারকারী আটক

পুরুষের চেয়ে নারীর গড় আয়ু তিন বছর বেশি

বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বর্তমানে ৭২.৩ বছর। ২০১৪ সালে এই প্রত্যাশিত আয়ুষ্কাল ছিল ৭০.৭ বছর। বর্তমানে পুরুষের তুলনায় নারীদের গড় আয়ু তিন বছর বেশি। দেশে পুরুষের গড় আয়ু বর্তমানে ৭০.৮ বছর এবং নারীদের গড় আয়ু ৭৩.৮ বছর।চলতি বছর জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের জনসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ কোটি ৫৫ লাখ ৫৭ হাজার। এর মধ্যে পুরুষের সংখ্যা ৮ কোটি ২৮ লাখ ৭০ হাজার এবং নারী ৮ কোটি ২৭ লাখ। শিশু মৃত্যুর হার গত পাঁচ বছরে শতকরা ২২ ভাগ কমেছে। সামাজিক নানা সূচকে এগিয়েছে বাংলাদেশ।বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) প্রকাশিত ‘মনিটরিং দ্যা সিচুয়েশন অব ভাইটাল স্ট্যাটিস্টিকস অব বাংলাদেশ’ (এমএসভিএসবি) শীর্ষক প্রতিবেদনে এমন চিত্র উঠে এসেছে।প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশে মাতৃ মৃত্যু, শিশু মৃত্যুর হার কমে এসেছে। পরিবারগুলোতে নারীদের প্রাধান্য বেড়েছে। বয়স্ক শিক্ষার হার বেড়েছে। এর পরেও কিছু সূচকে পিছিয়ে রয়েছে। প্রতিবেদনে দেখা যায় দেশ, বিবাহের গড় বয়স কমেছে। তালাকের হার বেড়েছে। স্যানিটেশনের হার শতভাগে উন্নীত হয়নি। মাতৃমৃত্যুর হার ধীরে কমেছে। শিক্ষার হার বাড়ছে, কিন্তু ধীরে। মাইগ্রেশন বা হস্তান্তরের হার বেড়েছে ব্যাপক হারে।২০১৮ সালে সারা বছরব্যাপী তথ্য সংগ্রহ করে এই প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। বুধবার রাজধানীর বিবিএস ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে এর প্রকাশ করা হয়। এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান। সভাপতিত্ব করেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্ত্তী। প্রতিবেদনের সার্বিক দিক তুলে ধরেন প্রকল্প পরিচালক একেএম আশরাফুল হক।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।